1. bdweb24@gmail.com : admin :
  2. him@bdsoftinc.info : Staff Reporter : Staff Reporter
রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০৬:৩২ অপরাহ্ন

বৃষ্টিতে ভিজে টিসিবি’র লাইনে

রিপোর্টার
  • আপডেট : বুধবার, ৭ জুলাই, ২০২১
  • ১২১ বার দেখা হয়েছে

বঙ্গনিউজবিডি ডেস্ক : করোনার ধাক্কায় বিপর্যস্ত জনজীবন। হাজার হাজার মানুষ কাজ হারিয়ে বেকার হয়েছে, চলে গেছে দারিদ্র্যসীমার নিচে। সামগ্রিকভাবে মানুষের আয়ে ভাটা পড়েছে। এমন পরিস্থিতিতে চলমান লকডাউনে নতুন করে সংকটে পড়েছে নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ। অন্যদিকে নিত্যপণ্যের বাজারেও চলছে অস্থিরতা। প্রায় সব নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম চড়া। এমন প্রেক্ষাপটে সরকারি বিপণন প্রতিষ্ঠান টিসিবি’র ট্রাকের সামনে ভিড় করছে করোনায় সংকটে পড়া হাজারো মানুষ। বুধবার সকাল থেকেই গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি নামে রাজধানীতে।

বৃষ্টির মধ্যেই দীর্ঘ লাইন ধরে টিসিবি পণ্য কিনতে দেখা গেছে সাধারণ ভোক্তাদের। তবে টিসিবি’র পণ্য শেষ হয়ে যাওয়ায় অনেকেই দীর্ঘসময় লাইনে দাঁড়িয়ে থেকেও খালি হাতে বাসায় ফিরে গেছেন। সরজমিন রাজধানীর কয়েকটি স্থানে গিয়ে এমন চিত্র দেখা যায়। তবে এসব স্থানে স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না। যত্রতত্রভাবে প্রচ- ভিড় করে লাইনে দাঁড়াচ্ছেন ক্রেতারা। একে অপরের সঙ্গে চলছে বাকবিতণ্ডা আর ধাক্কাধাক্কি।

সরজমিন দেখা গেছে, টিসিবি’র ট্রাকের দুই পাশে নারী ও পুরুষের দীর্ঘ লাইনে স্বাস্থ্যবিধি মোটেই মানা হচ্ছে না। ক্রেতাদের অনেকেই বলছেন, টিসিবি’র পণ্য কিনতে এসে কাছাকাছি দাঁড়িয়ে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার আরও বেশি ঝুঁকি তৈরি হচ্ছে। সকাল থেকে পণ্য বিক্রি শুরু হলে এতটা ভিড় ও ভোগান্তি হতো না বলে তারা জানান।

কাফরুল এলাকায় বৃষ্টির মধ্যে টিসিবি’র লাইনে দাঁড়িয়েছেন ৬০ বছর বয়সী আক্কাস মিয়া। তিনি সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত দুই ঘণ্টা ধরে দাঁড়িয়ে আছেন। কিন্তু টিসিবি’র ট্রাক এখনো আসেনি। তিনি বলেন, ‘আগে থাইকাই সিরিয়াল দিয়া রাখছি। গাড়ি কখন আইবো জানি না। তয় বেশির ভাগ সময় ২টার পরে আসে। অনেক সময় দাঁড়ায়ছিÑ এজন্য যে একটু কমে পামু তাই। একদিন নিলে বেশ কয়েকদিন খাইতে পারি।’

ইব্রাহিমপুর এলাকায় কথা হয় বেশ কয়েকজনের সঙ্গে। তারা বলেন, দুই/তিন ঘণ্টা দাঁড়িয়ে থাকার পর গাড়ি আসছে। কিন্তু পণ্য প্রায় শেষের দিকে। সিরিয়াল রয়েছে অনেক পেছনে। এখন পণ্য পাবো কিনা কে জানে। এর আগেও পণ্য না পেয়ে খালি হাতে বাসায় ফিরতে হয়েছে। আজকে বৃষ্টির মধ্যেই দীর্ঘ লাইন দেখে চিন্তায় আছি।
গতকাল মধ্য বাড্ডা এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, বৃষ্টির মধ্যে ছাতা মাথায় দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়েছেন কয়েক শ’ মানুষ। একদিকে টিসিবি’র ট্রাকে পণ্য বিক্রি হচ্ছে, অন্যদিকে লাইনে দাঁড়ানো নিয়ে বাকবিত-া চলছে ক্রেতাদের মাঝে। তবুও দীর্ঘ অপেক্ষা আর ধাক্কাধাক্কি সহ্য করে পণ্য পেয়ে বেশ খুশিই ক্রেতারা। এসময় লাইনে দাঁড়ানো জুলেখা খাতুন বলেন, ‘যে লম্বা লাইন! আজক্যাও কিছু পামু কিনা কে জানে। এর আগেও একদিন কিছুই লইতে পারি নাই।’

টিসিবি’র পণ্য বিক্রেতা ও ক্রেতারা জানান, করোনাকালে মানুষের চাহিদার তুলনায় টিসিবি’র পণ্য কম সরবরাহ করা হচ্ছে। তাছাড়া টিসিবি’র ট্রাক সকাল ১০টায় আসার কথা থাকলেও দুপুর পার হয়ে গেলেও আসছে না। কিন্তু অসংখ্য নারী ও পুরুষ সকাল থেকেই লম্বা সিরিয়াল দিয়ে অপেক্ষা করেন। রোদে পুড়ে, বৃষ্টিতে ভিজেও অপেক্ষা করেন তারা।
ইব্রাহিমপুরের টিসিবি’র পণ্য বিক্রেতা জানান, তাদের প্রতিদিন মাত্র ২০০ জনের পণ্য দেয়া হয়ে থাকে। কিন্তু কমপক্ষে তিনগুণ অর্থাৎ ৬০০ জনের চাহিদা রয়েছে। ফলে যারা সিরিয়ালে আগে থাকেন তাদেরকেই তারা পণ্য দিয়ে থাকেন। এসব ট্রাক থেকে একজন ক্রেতা সর্বোচ্চ ২ কেজি চিনি ৫৫ টাকায়, ২ কেজি মসুর ডাল ৫৫ টাকায় এবং সয়াবিন সর্বোচ্চ ৫ লিটার, প্রতিলিটার ১০০ টাকায় কিনতে পারছেন।

করোনা মহামারি প্রতিরোধে সারা দেশে চলমান লকডাউন ও ঈদুল আজহা উপলক্ষে ভোক্তাদের অপেক্ষাকৃত কমদামে পণ্য দিতে গত ৫ই জুলাই থেকে টিসিবি’র পণ্য বিক্রি শুরু হয়। আগামী ২৯শে জুলাই পর্যন্ত পণ্য বিক্রি প্রতিদিন চলবে।
টিসিবি সূত্রে জানা গেছে, রাজধানীসহ সারা দেশে টিসিবি’র ৪৫০টি ভ্রাম্যমাণ ট্রাকে পণ্য বিক্রি করা হচ্ছে। এর মধ্যে ঢাকা সিটিতে ৮০টি ও চট্টগ্রাম সিটিতে ২০টি ট্রাক রয়েছে। এ ছাড়া প্রতিটি মহানগর ও জেলা শহরেও ট্রাকসেলের মাধ্যমে পণ্য বিক্রি করা হচ্ছে। বর্তমানে টিসিবি’র প্রতিটি ট্রাকে দৈনিক ৬০০-৮০০ কেজি চিনি, ৩০০-৬০০ কেজি মসুর ডাল এবং ৮০০-১২০০ লিটার সয়াবিন তেল বরাদ্দ রাখা হচ্ছে।

Please Share This Post in Your Social Media

এই বিভাগের আরো সংবাদ

© ২০২৩ bongonewsbd24.com